এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনের জন্য কয়েকটি ফ্রি অ্যাপস

মানুষের চাহিদার শেষ নেই। সারাদিন বিভিন্ন অ্যাপস ব্যাবহার করার পর ও চিন্তা করে আরও যদি কিছু ফ্রি অ্যাপস পেতাম। কোন অ্যাপ জনপ্রিয়, কোন অ্যাপের ব্যাবহারকারী বেশি, কোন অ্যাপটি ব্যাবহার সুবিধাজনক, কোন অ্যাপটি ফ্রী পাওয়া যায়। এছাড়া দামী এন্ড্রয়েড ফোন থেকে শুরু করে সস্তা এন্ড্রয়েড ফোন পর্যন্ত কোন ফোনের অ্যাপের জনপ্রিয়তা বেশি।

এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনের জন্য কয়েকটি ফ্রি অ্যাপসের তালিকা  প্রকাশ করতে গিয়ে জার্মানির গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘প্রাইওরি ডাটা’ গুগল প্লে স্টোরে ডাউনলোডের উপর ভিত্তি করে পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় ১০টি ফ্রি এন্ড্রয়েড অ্যাপসের নাম প্রকাশ করেন।

এই ফ্রি অ্যাপসগুলো যেমন জনপ্রিয়, তেমনি নিরাপদ। অ্যাপসগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, ই-কমার্স, ছবি, ভিডিও সহ বিভিন্ন কাজে ব্যাবহার করা হয়। এছাড়াও আরও অনেক জনপ্রিয় ফ্রি অ্যাপস আছে, যা এন্ড্রয়েড ফোনের জন্য নিরাপদ।

এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনের জন্য কয়েকটি ফ্রি অ্যাপস

প্রথমে জার্মানি গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘প্রাইওরি ডাটা’ কর্তৃক প্রদও এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনের জন্য ১০টি ফ্রি অ্যাপসসহ আরও কিছু ফ্রি অ্যাপসের সুবিধা ও কার্যাবলী নিচে দেওয়া হলো-

1. হোয়াটসঅ্যাপ

এটি একটি জনপ্রিয় ” ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং ” অ্যাপ। এর মাধ্যমে ভয়েস কল, মেসেজ, ভয়েস মেসেজ, ইমেজ শেয়ারিং, গ্রুপ শেয়ারিং ও অন্যান্য অনেক কাজ করা যায়। এটি একটি ফ্রি এন্ড্রয়েড অ্যাপ। তাছাড়া বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমের স্মার্টফোনে ও হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাপটি ফ্রি ব্যাবহার করা যায়।

2. ফেসবুক মেসেঞ্জার

এই এন্ড্রয়েড অ্যাপটি ও একটি জনপ্রিয় ফ্রি “ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং” অ্যাপ। এর মাধ্যমে ভয়েস কল, ভিডিও কল, অডিও কল, ছবি, ভিডিও, স্টিকার ইত্যাদি আদান প্রদান করা যায়। এই ফ্রি অ্যাপটি বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমের স্মার্টফোন ও ডেস্কটপ কম্পিউটারে ব্যাবহার করা যায়। গত এপ্রিল ২০২৩ ইং পর্যন্ত সারাবিশ্বে এই ফেসবুক মেসেঞ্জার ফ্রি অ্যাপ ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল প্রায় ১২০ কোটি, যা জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে দ্বিতীয়।

3.সাবওয়ে সার্ফারস

সাবওয়ে সার্ফাস গেমটি সাইবো গেমস ও ডেনমার্কেল কিলো সমন্বিত ভাবে তৈরি করেন। ক্লান্তিহীন দৌড়ের মোবাইল গেম অ্যাপসটি ফ্রি ও খুব জনপ্রিয়। প্রতি মাসে ফ্রি এই অ্যাপসটি প্রায় তিন কোটি বার ডাউনলোড করা হয় এবং জনপ্রিয়তায় আট নম্বরে।

4.স্পোটিফাই মিউজিক

গান ও ভিডিও স্ট্রিমিং এর জন্য খুব জনপ্রিয় স্পোটিফাই মিউজিক অ্যাপস। এই অ্যাপসটি সুইডেনে তৈরি। এই অ্যাপসটি প্রায় ১৪ কোটি লোক মাসে ব্যাবহার করে।

5.ইনস্ট্রাগ্রাম

ইনস্ট্রাগ্রাম অ্যাপসটি ছবি ও ভিডিও আদান প্রদানে ব্যাবহার করা হয়। মোবাইলে ছবি ও ভিডিও আদান প্রদানে অ্যাপসটি বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে এই অ্যাপসটি তৃতীয়। প্রতি মাসে প্রায় আশি কোটি লোক ইনস্ট্রাগ্রাম ব্যাবহার করে।

6.ফেসবুক

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক। ফেসবুকে মেসেজ , ভয়েস কল, ভিডিও সহ যে কোনো কিছু আদান প্রদান করা যায়। এন্ড্রয়েড ফেসবুক অ্যাপসটি সম্পূর্ণ ফ্রি। ফেসবুক ব্যাবহারকারীর সংখ্যা মাসে ২০০ কোটি। জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে ফেসবুকের অবস্থান চতুর্থ।

7.ফেসবুক লাইট

ফেসবুক লাইটে ও মেসেজ, ভয়েস কল, ভিডিও আদান প্রদান করা যায়। কম গতির ইন্টারনেট দিয়ে ও ফেসবুক লাইট চালানো যায়। তাছাড়া ইনস্টলেশন এর জন্য মোবাইলে জায়গা নেয় মাত্র দুই মেগাবাইট। জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে ফেসবুক লাইটের অবস্থান পঞ্চম। ফ্রেব্রুয়ারী ২০২৩ পর্যন্ত এই অ্যাপটির ব্যাবহারকারীর সংখ্যা ছিল প্রায় বিশ কোটি।

8.উইশ

 

উইশ অ্যাপসটি একটি শপিং অ্যাপস। ই-কমার্সের জন্য এই ফ্রি অ্যাপসটি জনপ্রিয়তা লাভ করে। জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে ছয়ে। ব্রাজিল, উত্তর কোরিয়া, ইউরোপ, চীন সহ আরো কিছু দেশে ই-কমার্সের জন্য উইশ অ্যাপটি খুব জনপ্রিয়।  ২০১৩ সালে সান ফ্রান্সিসকোয় যাত্রা শুরু করে উইশ।

9.স্ন্যাপচ্যাট

ছবি আদান প্রদান, মাল্টিমিডিয়া মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন স্ন্যাপচ্যাট অ্যাপসটিকে জনপ্রিয় করে তোলে। ২০১১ সালে অ্যাপসটি চালু হয়। বর্তমানে দৈনিক প্রায় দশ কোটি লোক অ্যাপসটি ব্যাবহার করে এবং এক মিলিয়ন স্ন্যাপ তৈরি করে।

10.মেসেঞ্জার লাইট

মেসেঞ্জার লাইটে ছবি, মেসেজ, ইন্টারনেট লিংক আদান প্রদান করা যায়। এটি অনেকটা ফেসবুক লাইটের মতো। এই অ্যাপসটি ইন্সটলেশন এর জন্য মোবাইলে জায়গা নেয় ১০ মেগাবাইটের ও কম। মেসেঞ্জার লাইট অ্যাপসটির ব্যবহারকারী লোকের সংখ্যা ৫ কোটি এবং জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে এই ফ্রি  অ্যাপসটির স্হান দশম।

এই ছাড়া ও আরো অনেক ফ্রি অ্যাপস আছে। যেমন – ইউটিউব, টিকটিক। এইগুলো মানুষকে বিনোদন দিয়ে থাকে। এছাড়া সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান, পুথিগত শিক্ষাসহ বিভিন্ন ধরনের শিক্ষা মূলক কার্যক্রম শিখতে মানুষকে সাহায্য করে।

 জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে অ্যাপসগুলো অনেক এগিয়ে। অ্যাপসগুলো দিয়ে মানুষ ইনকাম করতে পারে। 

আরও পড়ুনঃ

স্মার্টফোন যেভাবে ব্যাবহার করলে চোখের ক্ষতি হয় না 

মোবাইলে ওয়াইফাই স্পিড বাড়াবেন যেভাবে 

গুগল ড্রাইভের স্টোরেজ খালি করার নিয়ম 

স্মার্টফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ করে যে অ্যাপগুলো