পুরাতন দলিল বের করুন খুব সহজে মোবাইল দিয়ে।

জমি বা জায়গা সম্পদ মালিকানা ছাড়া ভোগ দখল করা যায় না। আর মালিকানা হচ্ছে একটি লিখিত চুক্তিনামা বা দলিল। একটি নির্দিষ্ট স্হানের ভোগদখল এর জন্য ঘোষিত ক্রেতা বিক্রেতার সম্মতিপত্র।

দলিল কি?

দলিল হচ্ছে সরকার কর্তৃক নিয়োজিত প্রতিটি জেলা, উপজেলায় নিয়োজিত রেজিস্ট্রার বা নিবন্ধকের অফিসে জমির মালিক ও ক্রেতা উপস্থিত হয়ে নির্দিষ্ট ফি প্রদান এর মাধ্যমে জমির মালিকানা হস্তান্তর সংক্রান্ত যে চুক্তি পত্র তৈরি করে তাকে দলিল বলে।




দলিলের দুটি পক্ষ থাকে। এক পক্ষ বিক্রেতা বা দাতা, অন্য পক্ষ ক্রেতা বা গ্রহিতা। তবে কালের বিবর্তনে বা মানুষের সচেতনতার অভাবে দলিল নষ্ট হয় বা হারিয়ে যায়। তখন প্রয়োজনের সময় দলিল পাওয়া যায় না। এছাড়া জমির মালিকানা নিয়ে অনেক সময় দুই পক্ষ মারামারি করে। তখন দলিলের প্রয়োজন হয়।

ফলস্বরূপ দলিল তুলতে হয় সরকারি অফিস থেকে। এছাড়া এই দলিল বর্তমানে খুব  সহজে মোবাইলের মাধ্যমে অনলাইনে  থেকে উঠানো যায়।

“আজকের আর্টিকেলে আমরা পুরাতন দলিল কিভাবে খুব সহজে মোবাইল দিয়ে বের করা যায় তা জানতে পারবো।”

দলিল নিয়ে ঝামেলা অনেক কাল থেকে। কেহ দলিল হারিয়ে ফেলে। কেহ দলিল নষ্ট করে ফেলে। কারো দলিল চুরি হয়ে যায়। আবার বহু লোক আছে জাল দলিল করে অন্যের জমি দখল করতে চায়। এমন অনেক হাজারো সমস্যা দেখা দেয় দলিল নিয়ে। ফলে দলিল সারাক্ষণ নিজের কাছে যত্ন করে রাখতে হয়।




এইবার চলুন জেনে নেই কিভাবে মোবাইল দিয়ে পুরাতন দলিল বের করা যায়

মোবাইলে পুরাতন দলিল বের করার জন্য প্রথমে আপনি আপনার হাতে থাকা মোবাইলের ক্রোম ব্রাউজারে যান। এখন ক্রোম ব্রাউজার ওপেন করুন এবং ডেস্কটপ ভার্ষন করে নিন।

গুগলে গিয়ে সার্চ অপশনে wb registration লিখে সার্চ করুন । এইবার প্রথম পেজে wb registration নামে যে লিংক দেখতে পাবেন সেই লিংকে ক্লিক করুন। এই লিংকে ক্লিক করার পর আপনাকে পুরাতন দলিল বের করার ওয়েবসাইটে নিয়ে যাবে।

এই ওয়েবসাইট থেকে একটু নিচে E-SERVICES নামে একটি অপশন পাবেন। E-SERVICES নামের এই অপশন থেকে Searching of Deep নামের অপশনে গিয়ে ক্লিক করুন।

এখন আপনি Search of Registration Made অপশনে বহু অপশন দেখতে পাবেন। এখান থেকে আপনি প্রথমে থাকা By Seller/Buyer/Party Name অপশনে ক্লিক করুন।

এবার আপনি আপনার প্রথম নাম অর্থাৎ আপনি আপনার নামের প্রথম অংশ লিখবেন।  শেষ নাম অর্থাৎ নামের শেষ অংশ লিখবেন,  সাল অর্থাৎ কত সালে জমি রেজিষ্ট্রেশন করেছেন সেটি লিখবেন।

জেলা অর্থাৎ  যে জেলায় জমি রেজিষ্ট্রেশন করেছেন সে জেলার নাম লিখবেন এবং সর্বশেষ সিকিউরিটি কোড অর্থাৎ নিচের দেওয়া সংখ্যা কোডটি লিখবেন। সকল তথ্য সঠিক ভাবে লিখে ডিসপ্লে অপশনে ক্লিক করুন। ক্লিক করার পর আপনি জমির দলিল এর বিভিন্ন তথ্য দেখতে পাবেন।

এখানে আপনার নামের সাথে মিল আছে এবং একই বছর, একই জেলা থেকে যারা জমি রেজিষ্ট্রেশন করেছে তাদের তথ্য গুলো দেখানো হবে।

এখান থেকে আপনি অবশ্যই আপনার নিজের নাম, পিতার নাম, মাতার নাম এবং ঠিকানা মিলিয়ে নিবেন। এরপর যদি আপনি আরো বিস্তারিত তথ্য জানতে চান, তাহলে view অপশনে গিয়ে ক্লিক করুন।

এখানে আপনি আরো বিস্তারিত তথ্য দেখতে পাবেন। যা আপনাকে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য পেতে আরও সাহায্য করবে।  যেমন – আপনার পুরো ঠিকানা, জমির দলিল কোন অফিস থেকে রেজিষ্ট্রি করা হয়েছে, দাগ নম্বর, খতিয়ান নম্বর, জমির পরিমান, দলিল নম্বর, কত তারিখে জমির দলিল করা হয়েছে  ইত্যাদি সমেত আরো বিস্তারিত দেখতে পাবেন।

উল্লেখিত উপায়ে আপনি মোবাইলের সাহায্যে অনলাইনে নতুন দলিল ও পুরাতন দলিল খোঁজ করতে পারবেন। তবে মনে রাখবেন এখন ও অনলাইন থেকে জমির দলিল বাহির করা যায় না। অর্থাৎ এখনো জমির দলিল বাহির করার জন্য বাংলাদেশে জমির দলিল অনলাইন ভিত্তিক করা হয় নাই।

তবে আশা করা যায় অদূর ভবিষ্যতে দলিল ও অনলাইন ভিত্তিক করা হবে এবং জমির মালিকগন অনলাইন থেকে মোবাইলের মাধ্যমে জমির দলিল সহ প্রয়োজনীয় সকল তথ্য বের করে নিতে পারবেন।


F.A.Q.s

প্রশ্ন : অনলাইন ছাড়া কিভাবে জমির দলিল বা দলিলের নকল তোলা যায়?

উত্তর : জমির দলিল বা দলিলের নকল কপি তুলতে হলে যেতে হবে আপনার এলাকায় যেখানে জমি রেজিষ্ট্রেশন হয় অর্থাৎ আপনার এলাকার রেজিস্ট্রি অফিসে। রেজেস্ট্রি অফিসে গিয়ে জমিটি কত সালে রেজেস্ট্রি হয়েছে ,

কত নম্বর কলাম বইয়ের কত নম্বর পৃষ্ঠায় নকল করা হয়েছে ইত্যাদি তথ্য দিয়ে আপনি আপনার জমির দলিলের নকল তোলার জন্য আবেদন করতে পারেন। আপনার আবেদন গ্রহণ যোগ্য হলে কয়েকদিন পরে আপনি আপনার জমির দলিলের নকল কপি পাবেন।

প্রশ্ন : যদি জমির দলিল নাম্বার, দাগ নম্বর বা রেজিস্ট্রেশন করার তারিখ না জানা থাকে তাহলে কিভাবে জমির দলিল উঠানো যাবে?

উত্তর : আপনাকে প্রথমে জমির দাগ নম্বর জানতে হবে। সেজন্য বাড়ির মুরব্বিদের কাছ থেকে জেনে নিতে হবে। তারা না বললে স্হানীয় আমিনের কাছে গিয়ে জেনে নিতে হবে। আমিনের কাছ থেকে এসএ, সিএস, আরএস জেনে নিতে হবে।

এরপর আপনি তহশিল অফিসে গিয়ে খতিয়ান বের করতে পারেন। খতিয়ান দেখে আপনি উপজেলা ভূমি অফিসে গিয়ে নামজারি কেসের ফাইল উঠাবেন। কেসের ফাইল উঠালে আপনি জমির দলিল নাম্বার পেয়ে যাবেন।

দলিল নাম্বার দিয়ে আপনি সাব রেজেস্ট্রি অফিসে গিয়ে আপনার জমির দলিলের নকল কপি তুলতে পারবেন।