ভোটার আইডি কার্ড আসল নাকি নকল তা মোবাইল দিয়ে যাচাই করার সহজ নিয়ম:

ভোটার আইডি কার্ড মানুষের জাতীয় অধিকার। বর্তমানে এই আইডি কার্ড সরকারি, বেসরকারি, বিদেশ ও অন্যান্য যে কোনো কাজে লাগে। আর সেই জন্য প্রয়োজন আসল আইডি কার্ড। আর আইডি কার্ড আসল নাকি নকল ঘরে বসে সহজেই সেটা জেনে নিন।

কখনো কখনো প্রয়োজনের ক্ষেত্রে কারো পরিচয় ভেরিফাই করার জন্য জাতীয় পরিচয় পত্র আসল নাকি নকল সেটি যাচাই করার প্রয়োজন হয়। তাই আজকে জেনে নিবো কিভাবে ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র আসল নাকি নকল সেটি বের করার নিয়ম।

“মোবাইলে এনআইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র আসল নাকি নকল তা যাচাই করার নিয়ম “

NID কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র আসল নাকি নকল তা যাচাই করার উপায়:-

প্রথমে Chrome ব্রাউজারটি ওপেন করবেন এবং সার্চ অপশনে গিয়ে Land.gov.bd লিখে সার্চ করবেন।  Land.gov.bd লিখে সার্চ করার পর আপনার সামনে নিচের মতো একটা পেজ আসবে

একটু Skip  করে নিচের দিকে আসলে দেখবেন  “ভূমি উন্নায়ন কর” নামের একটা অপশন আছে, ঠিক নিচের ছবির মতো। ওখানে ক্লিক করুন।।

“ভূমি উন্নায়ন কর” অপশনে ক্লিক করার পর আপনার সামনে নিচের মতো একটি পেজ আসবে।

একটু Skip করে নিচের দিকে যাওয়ার পর আপনি “অনলাইন ভূমি উন্নায়ন কর” নামের একটা অপশন দেখতে পাবেন। ঠিক নিচের পেজের মতো। ওখানে ক্লিক করুন।

“অনলাইন ভূমি উন্নায়ন কর ” অপশনে ক্লিক করার পর আপনার সামনে নিচের মতো একটা ফরম আসবে।

আপনাকে ফরমটি পূরন করতে  হবে।

ফরমটিতে আপনার মোবাইল নাম্বার, যেই NID কার্ড যাচাই করতে চাচ্ছেন তার NID নাম্বার দিতে হবে, তারপর জাতীয় পরিচয় পত্র বা NID কার্ড এ যেই জন্ম তারিখ রয়েছে সেটি সঠিক ভাবে বসিয়ে দিবেন। এখন ফরমটি সম্পূর্ণ ভাবে পূরন কর হয়ে গেলে নিচে থাকা “পরবর্তী প্রদক্ষেপ” অপশনে ক্লিক করুন।।

“পরবর্তী প্রদক্ষেপ” অপশনে ক্লিক করার পর আপনার সামনে নিচের মতো একটি পেজ আসবে।

যদি আপনার সামনেও ঠিক এই রকমই পেজ আসে তাহলে বুঝবেন আপনার ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্রটিও আসল।।

আশা করি পোস্টটি পড়ার পর আপনি সহজেই ভোটার আইডি কার্ড আসল নাকি নকল সেটি যাচাই করতে পারবেন।।

এখন অনেকেই হয়তোবা প্রশ্ন করবেন,

প্রশ্ন: ভোটার  আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র আসল নাকি নকল সেটি কেন যাচাই করবো ❓

বর্তমান যুগ ডিজিটাল যুগ। ডিজিটাল হওয়ার সাথে সাথে ডিজিটাল প্রতারণাও বেড়ে গেছে।  যার ফলে বর্তমানে নানা রকম প্রতারণার স্বীকার হতে হয়। উদাহরণ স্বরুপ বলা যায়, সনাতন পদ্ধতির NID কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র ফটোশপের মাধ্যমে নকল করা যায়।  যার ফলে মারাত্মক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।  উদাহরণ হিসেবে বলা যায়,  ধরেন আপনি কাউকে অনেক টাকা দিয়েছেন। এবং প্রমান স্বরূপ আপনি তার জাতীয় পরিচয় পত্রের সকল তথ্য নিয়ে নিবেন।  যাতে করে পরবর্তীতে কোনো সমস্যা হলে তাকে চিহ্নিত করতে পারেন। কিন্তুু যদি ওই আইডি কার্ডটি নকল হয় তবে আপনি সঠিক ব্যাক্তি চিহ্নিত করতে পারবেন নাহ এবং প্রতারণায় স্বীকার হবেন। আপনার দেওয়া টাকা আর ফিরত পাবেন না। তাই এই ধরনের প্রতারণা থেকে বাঁচতে হলে ভোটার আইডি কার্ড আসল নাকি নকল সেটি যাচাই করতে হবে।  এছাড়াও নকল জাতীয় পরিচয় পত্র বা স্মার্ট কার্ডের কারনে অনেক ব্যাক্তি, প্রতিষ্ঠান ও কোম্পানি প্রতারণায় স্বীকার হয়। আর তাই এই ধরনের ঝামেলা থেকে বাঁচার জন্য জাতীয় পরিচয় পত্র আসল নাকি নকল সেটি যাচাই করতে হয়।

প্রশ্ন: এর মাধ্যমে কি যেই কোনো ধরনের স্মার্ট কার্ড যাচাই করা যাবে❓

উত্তর: হ্যায়! এর মাধ্যমে সনাতন এবং স্মার্ট দুই ধরনের আইডি কার্ডই যাচাই করা যাবে।

প্রশ্ন : এই সাইট ছাড়া অন্য কোনো সাইটের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয় পত্র আসল নাকি নকল যাচাই করা যাবে কিনা❓

উত্তর : হ্যাঁ  যাবে।

প্রশ্ন: মোবাইল দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করা যাবে কিনা❓

উত্তর : মোবাইল দিয়ে আপনি আপনার আইডি কার্ডের ভুল গুলো সংশোধন করতে পারবেন। আর যদি আপনি সংশোধন করার নিয়ম জানতে চান, তাহলে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন নিয়ে আমরা একটা পোস্ট করছি ঔখান থেকে পড়ে নিতে পারেন।

প্রশ্ন: ভোটার আইডি কার্ড এর ছবি বদলানো যাবে কিনা❓

উত্তর: ভোটার আইডি কার্ড এর ছবি বদলানো যাবে।

প্রশ্ন: এনআইডি কার্ড সংশোধনের জন্য কোনো টাকা পে করতে হবে কিনা❓

উত্তর: হ্যা! আপনাকে সেখানে দেখানো হবে কি পরিমান টাকা দিতে হবে। যত বেশি সংশোধন করবেন টাকার পরিমান তত বেশি হবে।

প্রশ্ন : আইডি কার্ড সংশোধন করার পরপরই কি তা সংশোধন হবে ❓

উত্তর : নাহ! এর জন্য আপনাকে কিছু দিন অপেক্ষা করতে হবে।।

যদি জাতীয় পরিচয় পত্র নিয়ে আপনাদের কোনো প্রশ্ন থাকে তবে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন এবং আমরা তার উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো।।

ধন্যবাদ সবাইকে!

আরও পড়ুনঃ

মোবাইল আসক্তির কালো দিক

কিভাবে প্রথম মোবাইল ফোনের সূচনা হয়েছিল

মোবাইল হ্যাং হলে আপনার করনীয়

3G মোবাইলকে 4G করার নিয়ম