স্মার্টফোন সম্পর্কে মানুষের ১০টি ভূল ধারণা।

স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই স্মার্টফোন সম্পর্কে রয়েছে মানুষের ভূল ধারণা ও এই ভূল ধারণাগুলো মানুষ সত্য বলে মনে করে।

প্রত্যেক মানুষের স্মার্টফোনের এই ভূল ধারণা গুলো সম্পর্কে জানা দরকার যে, বাস্তবে তা সত্য নয়। চলুন আমরা জেনে নেই স্মার্টফোন সম্পর্কে মানুষের কি কি ভূল ধারণা রয়েছে.

1. সারা রাত ধরে ব্যাটারি চার্জ করলে ব্যাটারি নষ্ট হয়

অনেকে মনে করেন স্মার্টফোন সারারাত চার্জে রাখলে ব্যাটারি নষ্ট হয়। কিন্তু বাস্তবে তা সত্যি নয়। কারণ স্মার্টফোনের ব্যাটারি ১০০% চার্জ হয়ে গেলে অটোমেটিক ভাবে ব্যাটারি চার্জ হওয়া বন্ধ হয়ে যায়। ফলে ব্যাটারির কোনো সমস্যা হয় না বা ব্যাটারি নষ্ট হয় না।

স্মার্টফোনে বা মোবাইল চার্জারে প্রযুক্তিগত কোনো সমস্যা না হলে সারারাত ধরে চার্জ দিলে ও ব্যাটারির কোনো ক্ষতি হবে না।

2. অটোমেটিক ব্রাইটনেস অন থাকলে ব্যাটারির চার্জ নষ্ট হয় না

স্মার্টফোনে Auto Brightness mode চালু থাকলে ব্যাটারির চার্জ নষ্ট হয় না, এটি একটি ভূল ধারণা। কারণ অটোমেটিক ব্যাটারি ফিচার অন করলে ব্যাটরির চার্জ খরচ হয়।

আবার যদি রোদ থেকে অন্ধকারে আসে তাহলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্রাইটনেসের মাত্রা তাড়াতাড়ি পরিবর্তন হতে থাকে এবং এর ফলে চার্জ বেশি খরচ হয়।

3. বেশি মেগাপিক্সেল মানে আরও ভালো ছবি পাওয়া

বর্তমানে মানুষ স্মার্টফোন দিয়ে শুধু ফোন বা ইন্টারনেট ব্যবহারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। স্মার্টফোন দিয়ে আরও অনেক কাজ করে। যেমন ক্যামেরা দিয়ে ছবি তোলা।  

মোবাইলে মেগাপিক্সেল ক্যামেরা থাকলে ডিএসএলআর ক্যামেরার মতো ছবি তোলা যায়। কিন্তু এটি একটি ভূল ধারণা। কারণ মোবাইল দিয়ে ডিএসএলআর ক্যামেরার মতো ছবি তোলা বাস্তবে সম্ভব নয়।

4. ফ্রি ওয়াইফাই ব্যাবহার করা নিরাপদ

যারা মোবাইল ফোন ব্যাবহার করে তারা প্রত্যেকে ওয়াইফাই ব্যাবহার করতে চায়। হয় টাকা দিয়ে, নচেৎ ফ্রি। কিন্তু ফ্রি ওয়াইফাই ব্যাবহার করা নিরাপদ নয়। কারণ অনেক হ্যাকার মোবাইল হ্যাক করার জন্য ওৎপেতে থাকে।  

আর আমরা মনে করে ফ্রি ওয়াইফাই ব্যাবহার করা নিরাপদ। এটি একটি ভূল ধারণা। কারণ এটি মোবাইল ফোনের ও ব্যাবহারকারীর নিরাপত্তা এবং সুরক্ষাকে প্রভাবিত করতে পারে। তাই কোথায় ও বেড়াতে গেলে ফ্রি ওয়াইফাই ব্যাবহার করবেন না।

5. 3G এর চেয়ে 4G তে ডেটা খরচ বেশি হয় না

এটি একটি ভূল ধারণা। মানুষ ধারণা করে , যত বেশি ডেটা খরচ করবে তত বেশি টাকা খরচ হবে। এটি ঠিক নয়। 3G তে নেট স্পিড কম থাকে কিন্তু 4G তে নেট স্পিড বেশি থাকে।

এছাড়া 3G এর চেয়ে 4G এর নেট কোয়ালিটি আরও উন্নত। তাই 3G এর ছেয়ে 4G এর ডাটা খরচ বেশি হয়।

6. স্মার্টফোনের রেডিয়েশন ক্যান্সারের কারণ হয়ে দাঁড়ায়

আমরা সবাই লোক মুখে শুনতে পাই, স্মার্টফোন থেকে যে রেডিয়েশন বা গামা রশ্মি বের হয় তাতে ক্যান্সার হতে পারে। এটি ও একটি ভূল ধারণা। স্মার্টফোন থেকে নির্গত ইলেক্টোম্যাগনেটিক রেডিয়েশন ফ্রিকোয়েন্সী যাতে মানব শরীরে ক্ষতি না করে এবং মানব শরীরে সম্পূর্ণ ভাবে নিরাপদ হয় তার জন্য গবেষণা সংস্থা গুলো নিয়মিত গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে।

তাছাড়া যে কোনো স্মার্টফোন বাজারে বিক্রি করার পূর্বে রেডিয়েশন ফ্রিকোয়েন্সী চেক করা হয় এবং মার্কেটে ছাড়া হয়।

7. স্মার্টফোন ও ক্রেডিট কার্ড একসাথে রাখা বিপদজনক

এটি ও একটি ভূল ধারণা। অনেকে মনে করে স্মার্টফোন এর সাথে ক্রেডিট কার্ড রাখলে ক্রেডিট কার্ডের ম্যাগনেটিক স্ট্রিপটি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। মনে রাখবেন ক্রেডিট কার্ডের ম্যাগনেটিক স্ট্রিপ এর সাথে স্মার্টফোন এর কোনো সম্পর্ক নেই।

তাই স্মার্টফোনের সাথে ক্রেডিট কার্ড রাখা সম্পূর্ণ নিরাপদ এবং এতে ক্রেডিট কার্ডের কোনো ক্ষতি হয় না।

8. চার্জ দেওয়ার সময় স্মার্টফোন ব্যাবহার করা ভালো না

মোবাইলে ফোন করা বা জরুরি কোনো কাজের প্রয়োজন হলে ফোনে চার্জ না থাকলে চার্জে দিয়ে আমরা মোবাইল চালাতে থাকি। স্মার্টফোন চার্জে রেখে ব্যাবহার করলে ফোনের ক্ষতি হয় এবং এমনকি মোবাইল ফোনটি একেবারে নষ্ট ও হয়ে যেতে পারে। এটি একটি ভূল ধারণা।

কারণ মোবাইল ফোনগুলো আগের তুলনায় অনেক উন্নত এবং ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানিগুলো স্মার্টফোনগুলোকে সেইভাবে তৈরী করে যাতে চার্জে রেখে ও ফোন চালানো যায়। তবে চার্জে রেখে মোবাইল ফোন চালালে ব্যাটারির ক্ষতি হতে পারে।

9. ভেজা মোবাইল শুকানোর জন্য হেয়ার ড্রায়ার ব্যাবহার করা যায়

হেয়ার ড্রায়ার ব্যাবহার করা হয় চুল শুকানোর জন্য। এবং এই মেশিন তৈরি করা হয়েছে চুল শুকানোর জন্য, মোবাইলের পানি শুকানোর জন্য নয়।

মোবাইল পানিতে পড়ে গেলে মোবাইলের পানি শুকানোর জন্য মানুষ হেয়ার ড্রায়ার ব্যাবহার করে। মোবাইল শুকানোর জন্য হেয়ার ড্রায়ার ব্যাবহার করা উচিত নয়। হেয়ার ড্রায়ার ব্যাবহার করলে স্মার্টফোন গরম হয়ে যায়। এরফলে মােবাইলের ক্ষতি হতে পারে। তাই ভূলে ও মোবাইল শুকাতে হেয়ার ড্রায়ার ব্যাবহার করবেন না।

10. ব্যাক্গ্রাউন্ডে চলা অ্যাপ বন্ধ না করলে অ্যাপ চালু থাকে

এটি একটি ভূল ধারণা। একটি অ্যাপ চালু থাকার পর প্রয়োজন বোধে অনেকে আরেকটি অ্যাপ চালু করে। কিন্তু পূর্বের অ্যাপটি মনের ভূলে বন্ধ করে না অথবা ইচ্ছে করে ও বন্ধ করে না। এরফলে পূর্বের অ্যাপটি চালু থাকে। এটি ঠিক নয়।

কারণ নতুন অ্যাপসটি চালু করার সাথে সাথে ব্যাকগ্রাউন্ডে থাকা পূর্বের অ্যাপসটি অটোমেটিক বন্ধ হয়ে যায়। তবে কিছু কিছু স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে ব্যাকগ্রাউন্ডে চালু থাকা অ্যাপস বন্ধ হয় না, সেক্ষেত্রে অ্যাপসটি মনে করে বন্ধ করে দিতে হয়।

মোটকথা স্মার্টফোন নিয়ে অনেকে অনেক ধরনের ভূল ধারণা করে থাকে এবং সমাজের মানুষের কাছে প্রচার করে। কিন্তু বাস্তবে তা সত্য নয়। তাই গুজবে কান না দিয়ে নিজের কাজ নিজে করুন।

আরও পড়ুন:

মোবাইল দিয়ে এনআইডি কার্ড বের করার নিয়ম 

মোবাইল দিয়ে ট্রেনের টিকেট বুকিং করার নিয়ম 

মোবাইল দিয়ে রেজাল্ট দেখার নিয়ম (marksheet  সহ)

মোবাইলের জন্য অত্যধিক প্রয়োজনীয় ৮টি অ্যাপস

 

Leave a Comment